দলে দলে সীমান্তে ভিড়ছে রোহিঙ্গারা

August 26, 2017, 6:02 pm, By Admin

post image

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর নতুন করে দমন-পীড়ন ও গ্রামে-গ্রামে অগ্নিসংযোগের কারণে আবারও সীমান্তে দলে দলে ভিড় করছে রোহিঙ্গারা। নাফ নদী পার হয়ে অনুপ্রবেশকালে শুক্রবার ১৪৬ রোহিঙ্গাকে আটক করে মিয়ানমারে ফেরত পাঠিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।
 

নাফ নদীর ওপারে ৩০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের জন্য অপেক্ষা করছে বলে গোয়েন্দা সূত্র জানিয়েছে।

টেকনাফে বিজিবি-২ ব্যাটালিয়নের উপঅধিনায়ক সরিফুল ইসলাম জোমাদ্দার জানান, আটককৃতদের মানবিক সহযোগিতা দিয়ে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হয়।

তিনি আরও বলেন, বৃহস্পতিবার থেকে হঠাৎ করে রোহিঙ্গারা দলে-দলে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালায়। তবে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্ত পয়েন্টে নজরদারি ব্যাপক বাড়ানো হয়েছে।

উখিয়া ও টেকনাফের স্থানীয় লোকজন জানায়, গত দু'দিনে এক হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা উখিয়া-টেকনাফ সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে। তাদের মধ্যে সাত শতাধিক আশ্রয় নিয়েছে উখিয়ায় কুতুপালং ক্যাম্পে।

অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গারা জানান, এ দেশে আসার জন্য শত শত রোহিঙ্গা ঘরবাড়ি ছেড়ে ওপারে অপেক্ষা করছে।

বৃহস্পতিবার ভোরে হ্নীলা জাদিমুড়া পয়েন্ট দিয়ে অনুপ্রবেশ করেন মো. জুবাইর। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে মিয়ানমারের সেনারা আবারও আগের মতই রোহিঙ্গাদের ঘরবাড়িতে আগুনে জ্বালিয়ে দেওয়া শুরু করে। তারা রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন শুরু করেছে, নির্বিচারে গুলিও করছে। ফলে অনেকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে আসার চেষ্টায় রয়েছে।

তিনি আরও জানান, অনেক কষ্টের পর ২৫ জনের সঙ্গে বাংলাদেশে আসতে পেরেছেন। তাদের সবার বাড়ি মংডুর মেরুল্লা, হাছসুরাতা ও কুল্লান গ্রামে।

টেকনাফের সীমান্ত পয়েন্ট দিয়ে ছেতারা বেগম পাঁচ সন্তান নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছেন। তারা আশ্রয় নিয়েছেন টেকনাফের লেদা বস্তিতে। তিনি জানান, তার স্বামী শামশুল আলমকে সেনাসদস্যরা ধরে নিয়ে গেছে। বেঁচে আছেন, নাকি মরে গেছেন কেউ জানে না। সেনাসদস্যরা বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযানের নামে নতুন করে রোহিঙ্গাদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিচ্ছে। রোহিঙ্গারা রাতের আঁধারে সীমান্তের কয়েকটি পয়েন্ট দিয়ে বাংলাদেশে ঢুকছেন।

উখিয়া ভালুখালী রোহিঙ্গা বস্তি ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি আবু ছিদ্দিক বলেন, গত কয়েক দিনে প্রায় ১৫০ রোহিঙ্গা এখানে অনুপ্রবেশ করেছে।

টেকনাফ বিজিবি ২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এসএম আরিফুল ইসলাম বলেন, নৌকায় নাফ নদী দিয়ে রোহিঙ্গারা অনুপ্রবেশ করার চেষ্টা করছে। তবে বিজিবি তাদের প্রতিহত করছে। কোনোভাবেই রোহিঙ্গাদের ঢুকতে দেওয়া হবে না।

This post has been read 348 times.

Please login for submit a comment!

















© Md. Shahar Ali-2018






Facebook Twitter LinkedIn GooglePlus